ডায়াবেটিস রোগীর খাবারের নিয়ম কানুন

ডায়াবেটিস হলে শর্করাজাতীয় খাবার নিষেধ-এ কথা একেবারেই ভিত্তিহীন। আজকাল অনেকেই ডায়াবেটিস হলে শর্করাবিহীন বা নো কার্ব/লো কার্ব ডায়েট যাচ্ছেন। কারণ বিপাকক্রিয়ার আমাদের মূল শক্তির উৎস হলো শর্করা। তবে ডায়াবেটিসের রোগীর এই শর্করা গ্রহন করতে হবে ভালো খাত থেকে।

খাকলে ভাত কিংবা রুটি -দুইটি খাবার খাওয়া যাবে । তবে পরিশোধ চাল ও আটার চেয়ে বাদামী চাল ও অপরিশোধিত গমের আটা কিংবা বেসনের রুটি ডায়াবেটিস জন্য উপযুক্ত । বার্লি ছোলা-মটর কিংবা ভুট্রার আটার রুটি আরও স্বাস্থ্যকর ।
ভাত-রুটি ছাড়াও অন্যান্য খাবারের শর্করার ‍দিকেও খেয়াল রাখতে হবে। যেমন প্রধান খাবেরর পর ফল খাবেন না । এতে র্শকরা বেশি বাড়বে। সকাল ও বিকেলে  খাবারের বিরতির ফলমূল খেতে হবে। এ ছাড়াও ফলের মৌসুমে অন্যান্য র্শকরা যেমন ভাত রুটি আলু খাওয়া কমিয়ে ফেলতে পারেন।সবজির ক্ষেত্রে শর্করাসংবলিত সবজি যেমন : আলু মিষ্টিকুমড়া কাঁচা কলা গাজর কাঁকরোল কাঁঠালে বিচি ,কচুরমুখি সীমিত পরিমাণে খেতে হবে।রান্নার ধরনের ওপরও রক্তে শর্করার বাড়া – কমা অনেকটা নির্ভর করে । শর্করাসংবলিত সবজিগুলাে অনেকক্ষণ ধরে রান্না করলে সহজে শােষণ হয় এবং দ্রুত রক্তে শর্করার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় । কাঁচা সবজিতে আঁশ বেশি বলে কম শােষিত হয় ।

ডায়াবেটিসে খাবারের ধরন

ডায়াবেটি শর্করাজাতীয় খাবার মূলত দুই ধরনের হয়ে থাকে। সরল শর্করা -যা খুব দ্রুত পরিপাক ও শোষিত হয়ে রক্তে গ্লুকোজ পরিমান দ্রুত বাড়িয়ে দেয়। এর মধ্যে রয়েছে

মিষ্টিজাতীয় খাবার ,সাদা ভাত ,সাদা রুটি সাদা চিনি ,আলু ,নুডুলস ,পাস্তা ইত্যাদি। অপর দিকে জটিল শর্করা অনেকটা সময় নিয়ে পরিপাক ও শোষিত বলে রক্তে গ্লুকোজ পরিমান কম ও অপেক্ষাকৃত ধীরে বৃদ্ধি পায়। যেমন গোটা শস্যের খাবার ( লাল শাকসবজি ,তাজা ফলমূল ইসবগুেলো ভুসি ইত্যাদি । ডাযাবেটিস রোগীদের বেছে নিতে হবে জটিল শর্করাসমৃদ্ধ খাবার । ডায়াবেটি রোগীদের যোকােনো খাবার গ্রহনের আগে ভাবা উঠিত সেই খাবারটির গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কেমন। একেক খাবারের শর্করা শোষন ও বিপাকে গতি ও মাত্রা ভিন্ন । কারণ তাদের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স মাত্রা ভিন্ন । তাই যেসব খাবের জিআই ৫৫এর নিচে সেসব খাবার ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আদর্শ । যেমন লাল চাল ,লাল আটা,  ভুট্রা ,ব্রকলি, পালংশাক ,শলা, লেটুল ,টমেটো ,আঙুর ,আপেল ,নাশপাতি কমলা ,কলা লো ফ্যাট ‍মিল্ক ,ডাল বাদাম বীজজাতীয় খাবার মটর ইত্যাদি। আর যেসব খাবারের জিআই ৭০ -এর ওপরে সেসব খাবার তালিকায় খুব সীমিত পরিমাণে রাখা বা বাদ দেওয়া ভালো । কারণ এই খাবার রক্তে শর্করা মাত্রা বাড়িয়ে দেয় দ্রুত । এর মধ্যে আছে সাদা চাল ,সাদা রুটি, সেদ্ধ আলু , কর্নফ্লেক্স ,সাদা ময়দা দিয়ে তৈরি বেকারি  আইটেম , তরমুজ,মিষ্টিকুমড়া রাইস মিল্ক ইত্যাদি ।

সুন্দর দাঁত সবার কাম্য

সুন্দর হাসির জন্যও ঝকঝকে সুন্দর দাঁতের বিকল্প নেই । কিন্তু কিছু সমস্যায় দাঁতের সৌন্দর্য বিনষ্ট হতে পারে । দাঁতের সৌন্দর্য বিনষ্টকারী অন্যতম কয়েকটি সমস্যা হলাে উঁচুনিচু দাঁত , স্পেসিং , ফাঁকা দাঁত , ওপেন বাইট বা দাঁত না মেলা , ওভার বাইট বা ওপরের দাঁত দিয়ে নিচের দাঁত ঢাকা পড়া এবং নিচের দাঁত ওপরের তালু পর্যন্ত পৌঁছে যাওয়া , এজ টু এজ কামড় , উচু দাঁত কিংবা নিচু দাঁত , ক্রস বাইট বা অসম কামড় , ঘােরানাে দাত ইত্যাদি । কারণ দাঁত ও চোয়ালের হাড়ের আকারের আয়তনে অসামঞ্জস্য , হাড় বড় হলে বা দাঁত ছােট হলে কিংবা উল্টোটা হলে এমন হতে পারে । দুধদাঁত সময়ের আগে পড়ে গেলে বা নির্দিষ্ট সময়ের পরও রয়ে গেলে , অস্বাভাবিক আঙুল চোষার অভ্যাস , ঠোঁট বা তালুকাটা , জন্মগত চোয়ালের হাড়ের অস্বাভাবিকতা , ল্যাবিয়াল ফ্রিনামের অস্বাভাবিকতা , বংশগত , দাঁত ফেলে দিয়ে কৃত্রিম দাঁত সংযােজন না করা ইত্যাদি । নেতিবাচক দিক দাঁতের অবস্থানের কারণে অনেক ক্ষেত্রেই সৌন্দর্যহানি হয় ।

এ ছাড়া সব দাঁতে ব্রাশ পৌঁছায় না । ফলে ঠিকভাবে দাঁত পরিষ্কার করা হয় না । এতে ক্যারিজ বা গর্ত , মাড়ি রােগ , মুখে দুর্গন্ধ , ঘর্ষণজনিত দাঁতক্ষয় থেকে শিরশির অনুভূতি দেখা দেয় এবং দাঁত বিবর্ণ দেখায় । এ ছাড়া সামান্য আঘাতে সামনের দাঁত ভাঙা , অসম কামড়ে দাঁতের ক্ষয় ও চোয়ালের অস্থিসন্ধিতে জটিলতা , জিহ্বা বা গালে কামড় পড়ার সমস্যাও দেখা দেয় । কারও কারও ক্ষেত্রে খাবার চিবুতে অথবা কথা বলতেও সমস্যা হতে পারে । করণীয় অর্থোডন্টিক চিকিৎসার মাধ্যমে দাঁতকে সুসজ্জিত ও সুসামঞ্জস্যপূর্ণ করা সম্ভব । একসময় ধারণা করা হতাে বয়স হলে হয়তাে এমন চিকিৎসা সম্ভব নয় । কিন্তু বর্তমানে আমাদের দেশেই এর সফল চিকিৎসা চলছে । তবে শুরু থেকেই এলােমেলাে দাঁতের সম্ভাবনা থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শে থাকা উচিত ।

এতে চিকিৎসায় সময় কম লাগে । বয়স বেশি । হলে চিকিৎসায় সময়ও বেশি লাগে । অনেক সময় অর্থোডন্টিক চিকিৎসায় দাঁতের জায়গা ঠিকভাবে তৈরির জন্য চারটি দাঁত ফেলে দিতে হয় । পরে অবশ্য অন্য দাঁত দিয়ে এই শূন্যস্থান পূরণ হয়ে যায় । ফাঁকা দাঁতের ক্ষেত্রে বন্ডিং ফিলিংয়ের মাধ্যমে সহজেই সমাধান সম্ভব । পুনরায় আকার দিতে বা চোয়াল ছােট করার জন্য কখনাে কখনাে অস্ত্রোপচারের প্রয়ােজন পড়তে পারে ।

Leave a Reply