সুনামি প্রাকৃতিক দূর্যোগ

সমুদ্রের নিচে ভূমিকম্পে সমুদ্রের উপরের জলরাশিতে প্রবল ঢেউ জাগে । জাপানি ভাষায় এরূপ প্রাকৃতিক ঘটনাকে বলে সুনামি । জাপানের কাছে সমুদ্রে প্রায়ই ভূমিকম্প হয় । আর তার ফলে ঘটে সুনামি । সাধারণত খুব বড় রকমের ভূমিকম্পের আগে অনেক সময় একাধিক ছােট বড় ভূমিকম্প হয় । এরকম ভূমিকম্প হলে সুনামি হতে পারে , এরকম কিছুটা ধারণা করা চলে । আর তাই করা চলে সাবধানতা অবলম্বন । জাপানে এরকম সাবধানতা গ্রহণ করা হয়ে থাকে । ভূমিকম্প কেন হয় তার ব্যাখ্যা অবশ্য এখনও পুরােপুরি দেওয়া চলে না । সব ভূমিকম্প এক রকম কারণের জন্যও হয় না । ভূমিকম্পের উপকেন্দ্র ছিল সমুদ্রের পানির নিচে সুমাত্রা দ্বীপের কাছে । পানিতে বিশাল ঢেউয়ের সৃষ্টি হয় সমুদ্রের তলের এ কম্পনের কারণে । কেবল যে ব্যাসল্ট আর গ্রানাইড স্তর ভেঙে পড়বার ফলেই বড় রকমের ভূমিকম্প হয় তা কিন্তু নয় । যদিও অধিকাংশ ক্ষেত্রে এটাই হলাে কারণ ।

সুনামি প্রাকৃতিক দূর্যোগ

সুনামির অর্থ

সুনামি উৎপত্তিগত দিক থেকে জাপানি ভাষার একটি শব্দ । এর শাব্দিক অর্থ হলাে “ পােতাশ্রয়ের ঢেউ ” । শাব্দিক অধ শ্রুতিমধুর হলেও সুনামি এক ভয়ঙ্কর বিপর্যয়ের নাম এর প্রতিটি পরতে পরতে রয়েছে ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ ও প্রাণসংহারক উন্মত্ততা । সুনামির প্রকৃতি : ২৬ ডিসেম্বর , ২০০৪ ভারত মহাসাগরের তলদেশে সংঘঠিত এ সুনামি নামের ভয়াবহ ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল রিখটার স্কেলে ৯.২ । গত চল্লিশ বছরের ইতিহাসে এমন ভয়াবহ ভূমিকম্প আর দেখা যায়নি । ভূমিকম্পজনিত সামুদ্রিক ঢেউ প্রবলবেগে উপকূলে আঘাত হানে । তটরেখায় একের পর এক আঘাতের মাধ্যমে গােটা উপকূলীয় অঞ্চলকে পরিণত করে ধর্মগ্রন্থে বর্ণীত ঐতিহাসিক মহা প্রলয়ের মতাে এক মহা বিপর্যস্ত এক জনপদে । এ মহাপ্রলয়ের গতি ছিল কখনাে কখনাে ৮০০ কি . মিটারের বেশি । গভীর সাগরে একটি ঢেউ থেকে আরেকটি ঢেউয়ের দূরত্ব ছিল কয়েকশ কি.মি. । এ সুনামি ভারত মহাসাগর তীরবর্তী দেশ সােমালিয়াতেও আঘাত হানে । অর্থাৎ সােমালিয়া থেকে ইন্দোনেশিয়া , ভারত থেকে শ্রীলংকা , থাইল্যান্ড থেকে ফিলিপাইনের বিস্তৃত এলাকা থর থর করে কেঁপে ওঠে সুনামির ভয়ঙ্কর থাবার আকস্মিক আক্রমণে । নিঃসন্দেহে সুনামি এক প্রলয়ংকরী প্রাকৃতিক বিপর্যয় ।

সুনামির ধ্বংসযজ্ঞের চিত্র

২৬ ডিসেম্বরের মহাপ্রলয়ে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হলাে ইন্দোনেশিয়া । দেশটির উপকূলবর্তী সব গ্রামই পানির তােড়ে ভেসে গেছে । এখানে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে । স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় আশঙ্কা প্রকাশ করে জানিয়েছেন শুধু আচেহ এবং উত্তর সুমাত্রায়ই মৃতের সংখ্যা ১,১০,২২৭ । সরকারি হিসাব অনুযায়ী শ্রীলঙ্কায় সুনামি জলােচ্ছাসে মৃত্যু ঘটেছে ৩০,৯২০ জনের । আহত হয়েছে ৯৬ হাজারেরও বেশি লােক । এখনাে পর্যন্ত ৫,২৪০ জন নিখোঁজ রয়েছে । এ পর্যন্ত ভারত সরকারের এক হিসাব অনুযায়ী , নিহত হয়েছে ১৫,৭৮২ জন । এছাড়াও নিখোঁজ রয়েছে ৫,৫১১ জন । সরকার বলছে , অনুমান করা হচ্ছে এ নিখােজ ব্যক্তিরা আর বেঁচে নেই । থাইল্যান্ডের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের হিসাব অনুযায়ী সেখানে ২০৬১ থেকে ৪,৯৯৩ জন বিদেশি এবং ২,২৩২ জন থাই নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে । নিহত অপর তিনশজনের পরিচয় জানা যায়নি । জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী মিয়ানমারে অন্তত ৯০ জন নিহত হয়েছে । তবে ধারণা করা হচ্ছে , এ সংখ্যা আরও অনেক বেশি হবে । মালদ্বীপের তল্কালীন প্রেসিডেন্ট মামুন আব্দুল গাইয়ুম জানিয়েছিলেন , সেখানে অন্তত ৭৫ জন নিহত এবং পর্যটন এলাকা থেকে আরও ৪২ জন নিখোঁজ হয়েছিলেন ।

২৬ ডিসেম্বরের ভয়ঙ্কর সুনামি শুধু এশিয়ায়ই নয় আফ্রিকার পূর্ব উপকূলে আঘাত হানে । এতে সােমালিয়ায় ১৭৬ , তাজানিয়ায় ১০ এবং কেনিয়ায় একজন নিহত হয় । সুনামি বিধ্বস্ত এলাকাগুলােতে পর্যাপ্ত ত্রাণ পৌঁছানাে হয় । জাতিসংঘ বলেছে , জীবিতদের পর্যাপ্ত সাহায্য পৌছে দিয়ে বিশ্ব এ চ্যালেঞ্জ মােকাবেলা করতে সচেষ্ট হয়েছিল । সবচেয়ে দুর্গত এলাকা ইন্দোনেশিয়ার আচেহ প্রদেশে বিমানে করে নিয়মিত সাহায্য পৌছে দেওয়া হয়েছে । এছাড়াও যুক্তরাষ্ট্র , ইন্দোনেশিয়া , অস্ট্রেলিয়া এবং মালয়েশিয়ার সামরিক বিমানগুলাে দুর্গত এলাকাগুলােতে প্রয়ােজনীয় সাহায্য পৌছে দেওয়ার কাজে নিয়ােজিত ছিল ।

বিভিন্ন কালের সুনামি

পৃথিবীর ইতিহাসে বিভিন্ন যুগে সুনামি অবতীর্ণ হয় প্রলয়ংকারী রূপ নিয়ে । সর্বপ্রথম ১৮৯৬ সালে ক্যালিফোর্নিয়ায় সান্তা বারবারার মেইন বুলেডারডের একটি অংশ ভাসিয়ে নিয়ে যায় । এছাড়া ১৯০৫ সালের জানুয়ারি মাসে । উপকূলীয় ভূমিকম্পে টুমাকো ও কলম্বিয়ার একটি অংশ ভেসে যায় এবং রিউভার্গে , ইকুয়েডর ও কলম্বিয়ার মিকেবেতে ৫০০ থেকে দেড় হাজার লােকের প্রাণহানি ঘটে । ১৯৪৬ এর ১ এপ্রিল : আলাস্কার ভূমিকম্পে সৃষ্ট সুনামিতে হিলাে ও হাওয়াইয়ে ১৫৯ জনের মৃত্যু এবং কয়েক লাখ ডলারের ক্ষতি হয় । ১৯৫৫ – এর ১ নভেম্বর : লিসবনে ভূমিকম্পের ফলে ২০ ফুট উঁচু জলােচ্ছাস পর্তুগাল , স্পেন ও মরক্কোর উপকূলে আঘাত হানে । ১৯৬৪ – এর ২৮ মার্চ : গুড ফ্রাইডেতে ভূমিকম্পের পর জলােচ্ছাসে আলাস্কা উপকূলের ৩ টি গ্রাম বিধ্বস্ত হয় । পশ্চিম উপকূল ভেসে গেলে ১০৭ জন আলাস্কা , ৪ জন এভিনন ও ১১ জন ক্যালিফোর্নিয়ার অধিবাসী নিহত হয় ।

Leave a Reply